বাড়ির সামনে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের আমানতপুর গ্রামের ফরায়েজি বাড়ির সামনে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মো. সোহাগ (৩০) নামে এক যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার দুপুরে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত সোহাগ ওই গ্রামের মো. সেলিমের ছেলে। তিনি বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ছিলেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোহাগ বাড়ির পাশে চাচার দুটি মৎস্য খামার দেখাশোনা করতেন। তাদের খামারের পাশে জিরতলী ইউনিয়নের মজুমদারহাট এলাকার কালাম নামে এক ব্যক্তির আরও একটি মৎস্য খামার রয়েছে। বুধবার রাতে কালাম তার খামারের মাছ চুরির জন্য সোহাগকে অভিযুক্ত করলে এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়।

এরপর বৃহস্পতিবার সকালে কালামের খামারের কর্মচারী রুবেল ও তার সহযোগী সুজন, শুভ, মামুনসহ আরও কয়েকজন সোহাগকে তার বাড়ির সামনে কুপিয়ে জখম করে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে বেগমগঞ্জ থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে।

এদিকে বেগমগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল লতিফ মেম্বার জানান, নিহত সোহাগ যুবলীগের সক্রিয় কর্মী ও ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ছিলেন। তার মৃত্যুতে আমরা বঙ্গবন্ধুর একজন আদর্শের সৈনিককে হারালাম। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে জামায়াত-বিএনপির লোকজন সোহাগকে হত্যা করেছে বলে তিনি দাবি করেন।